মুসলিম মেয়েকে বিয়ে করা শঙ্কু চালকের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে, তাদের উপর থেকে সামাজিক বয়কটের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য বাউরি সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কাছে লিখিতভাবে অনুরোধ জানালেন হিন্দু সংহতির সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য।

হিন্দু সমাজের অবিচ্ছেদ্য অংশ বাউরী সমাজের একটি ঘটনা নিয়ে গতকাল আমরা একটি পোস্ট দিয়েছিলাম। প্রায় আড়াই বছর আগে পশ্চিম মেদিনীপুরের বেনিসুলি এলাকার অন্তর্গত নয়াগ্ৰামের রবীন্দ্রনাথ চালকের ছেলে শঙ্কু চালকের সাথে স্বেচ্ছায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলো পার্শ্ববর্তী গ্ৰামের রেহানা খাতুন। সে নিজেকে সনাতনী শিকড়ে ফিরিয়ে এনেছে। শঙ্কুর পরিবারও তাকে হিন্দু গৃহবধূ হিসেবে সমাদরে নিজেদের পরিবারে গ্ৰহণ করেছে। গত কয়েকদিন ধরে কিছু হিন্দু বিরোধী শক্তি এই বিবাহের বিরুদ্ধে ঘোট পাকাতে শুরু করে। শঙ্কুর পরিবার এবং তাদের জ্ঞাতিগুষ্টিদের ৯ টি পরিবারকে সামাজিক বয়কটের ডাক দেয়।


হিন্দু সংহতি এই বয়কটের তীব্র বিরোধিতা করেছে। আমরা মনে করি যে শঙ্কু চালকের কাজ অভিনন্দনযোগ্য। সামাজিক বয়কটের ঘোষণা জানতে পেরেই শঙ্কু চালকদের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন হিন্দু সংহতির সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য। গতকালই হিন্দু সংহতির দুই সাধারণ সম্পাদক সাগর হালদার এবং মুকুন্দ কোলে মেদিনীপুর পৌঁছে গিয়েছিলেন। ওখানকার হিন্দু সংহতির বিশিষ্ট কার্যকর্তা প্রসেনজিৎ দাসকে সঙ্গে নিয়ে শঙ্কু এবং তার স্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রয়োজনীয় সাহায্য তাদের হাতে তুলে দেন। সর্বতোভাবে তাদের পাশে থাকার বার্তা দিয়ে আসেন।
আজ বাউরী সমাজ কল্যাণ সমিতির পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশের সভাপতিকে ও সেইসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার বাউরী সমাজের বেশ কয়েকজন এবং তফশিলী সমাজের কয়েকজন জনপ্রতিনিধিদের কাছে বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করার জন্য লিখিতভাবে অনুরোধ করেন হিন্দু সংহতির সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য। চিঠিতে তিনি আশাপ্রকাশ করেন যে তাদের হস্তক্ষেপে এই সামাজিক বয়কটের অবসান হবে এবং সমাজ সমাদরে সস্ত্রীক শঙ্কু বাউরীকে গ্ৰহণ করবে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s