হিন্দু নামের আড়ালে ৭জন বেগম এবং ৫৬জন সন্তানের জনক কেরালার সৈয়দ আলী

sarkarএকজন ধার্মিক মুসলমান – সে শিক্ষিত হোক বা মূর্খ, দারুল ইসলামের স্বার্থে হিন্দুদের বোকা বানিয়ে (আল তাকিয়া) অত্যধিক সন্তান উৎপাদনের মাধ্যমে জিহাদ চালিয়ে যাওয়া তার কর্তব্য। তার জ্বলন্ত উদাহরণ কেরালার সৈয়দ আলী। কেরালার তিরুবনন্তপুরমের বাসিন্দা সৈয়দ আলী দেশভাগের পর পিতার সঙ্গে পাকিস্তানের জলন্ধর থেকে ভারতে চলে আসেন। তারা উত্তর প্রদেশের লখনৌতে আশ্রয় নেয়। তার পরিবার বংশপরম্পরায় ইউনানী চিকিৎসা করতো। যুবক সৈয়দ আলীও পিতার থেকে পাওয়া ইউনানী জ্ঞান নিয়ে লখনৌতে প্রাকটিস শুরু করেন। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় তার মুসলিম পরিচয়। মুসলিম হওয়ায় হিন্দু রোগীরা তার থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। তখন সৈয়দ আলী এক নতুন চালাকি করেন। তিনি তার পরিবারকে নিয়ে কেরালায় চলে আসেন সত্তরের দশকে। কেরালায় এসে সৈয়দ আলী কেটে ফেললেন দাঁড়ি, নিজের মুসলিম পরিচয় লুকিয়ে রাখলেন এবং সম্পূর্ণ হিন্দু পরিচয় দিতে লাগলেন স্থানীয় হিন্দু অধিবাসীদের। তিনি নতুন নাম নিলেন এমএস সরকার এবং শুরু করলেন ইউনানী চিকিৎসা। তিনি জনপ্রিয় হতেই রোজ সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দিতেন। চিকিৎসক হিসেবে একটু নামডাক হতেই একের পর এক বিয়ে করতে শুরু করলেন তিনি। বিয়ে করতে করতে দশবছরের মধ্যেই ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ তার স্ত্রী-এর সংখ্যা দাঁড়ায় ৭জন-এ। মোট ৫৬জন ছেলেমেয়ের পিতা তিনি। তিনি বাইরে লোকের কাছে প্রচার করতেন যে তিনি ইউনানী চিকিৎসার মাধ্যমে যৌন ক্ষমতা বাড়াতে পারেন এবং তার প্রমাণ তিনি নিজেই। তবে তিনি লোকের কাছে এমএস সরকার নামে পরিচিত হলেও বাড়িতে তিনি মুসলিম আচার পালন করতেন। তিনি আর পাঁচটা মুসলিমের মতোই একাধিক বিবাহ করেছেন এবং প্রায় অর্ধশত সন্তান গ্রহণ করেছেন তিনি। এই বছর মার্চ-এর প্রথম সপ্তাহে তার মৃত্যু হলো । তার চিকিৎসা দেখাশুনো করেন বর্তমানে তার বড় ছেলে এসকে সরকার। তিনিও তার পিতার মতো হিন্দু নাম নিয়ে বোকা বানাচ্ছেন হিন্দুদের এবং জমিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন ইউনানী চিকিৎসা।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s