মাদ্রাসা ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করলেন মাদ্রাসারই প্রধান শিক্ষক, বিক্ষোভ কালনায়

ছাত্রীর শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্ত মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষককে গ্রেপ্তারের দাবিতে বিক্ষোভ দেখালেন গ্রামবাসীরা৷ গত ২৩শে ফেব্রুয়ারী, শুক্রবার পূর্ব বর্ধমান জেলার কালনার মোসলেমাবাদ মাদ্রাসায় বছর ১৪-এর এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ৷ শুধু তাই নয়, শ্লীলতাহানির পর বেধড়ক মারধর করা হলে অচৈতন্য হয়ে পড়ে ছাত্রীটি৷ এরপর প্রধান শিক্ষককে গ্রেপ্তারের দাবিতে শনিবার বিক্ষোভ শুরু হয়৷ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে খইরুল ইসলাম মণ্ডল নামে অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে আটক করে থানায় নিয়ে আসে৷ কালনা থানার ওসি প্রণব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘অভিযোগ খতিয়ে দেখে আইন মেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷’’ ওই ছাত্রীর মা থানায় লিখিত অভিযোগে জানিয়েছেন, শুক্রবার মেয়ে মাদ্রাসার সিঁড়ি দিয়ে নামছিল৷ সেই সময় প্রধান শিক্ষক খইরুল ইসলাম মণ্ডল মেয়েকে জড়িয়ে ধরেন৷ তখন মেয়ে চিৎকার করে উঠলে অন্যান্য শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা চলে আসে৷ সেই সময় প্রধান শিক্ষক মেয়েকে চুলের মুঠি ধরে মারতে শুরু করেন৷ এতে মেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে৷ খবর পেয়ে মেয়েকে উদ্ধার করে প্রথমে আটঘরিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ও পরে কালনা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করেন তাঁরা৷ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রধান শিক্ষক৷ মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ওই ছাত্রীর পরিজনরা তাঁকে মারধর করেছেন বলে পাল্টা অভিযোগ তুলেছেন তিনি৷ অভিযুক্ত শিক্ষক বলেন, ‘‘আমি নমাজ পড়ে মাদ্রাসায় ফিরে বারান্দায় দাঁড়িয়েছিলাম৷ তখন দেখি এক অভিভাবক উপরে উঠে আসছেন৷ কিছু বুঝে ওঠার আগেই উনি আমার চোখের নীচে ঘুষি মেরে বলেন, তুই আমার মেয়েকে মেরেছিস৷ আসলে নমাজের পর আমি সিঁড়ি দিয়ে ওঠার সময় ওই ছাত্রী দৌড়ে নীচে নামছিল৷ আমার সঙ্গে ধাক্কা লাগায় আমি একটু বকাঝকা করি৷ এরপর আমি তাকে ক্লাসেও বসিয়ে দিয়ে আসি৷ আমাকে মারধর করার পর ওই ছাত্রীকে ডেকে তার সামনেই পুরো বিষয়টি বলি৷ কয়েকজন ছাত্রছাত্রীও ঘটনার সাক্ষী রয়েছে৷ তা সত্ত্বেও এখন আমার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করা হচ্ছে৷’’ ওই ছাত্রী অবশ্য দাবি করেছে, প্রধান শিক্ষক তাকে জড়িয়ে ধরেছিলেন৷ তার শরীরে হাত দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। সে চিৎকার করতেই তাকে মারধর করা হয়৷ অভিভাবকরা বলেন, মেয়েদের মাদ্রাসায় পাঠিয়ে নিশ্চিন্তে থাকতে পারছেন না তাঁরা৷ ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবি করেন তাঁরা৷

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s