নাইজেরিয়ায় শতাধিক ছাত্রীকে অপহরণ করলো বোকো হারাম

নাইজেরিয়ায় আতঙ্ক সৃষ্টিকারী ইসলামিক জিহাদি গোষ্ঠী হলো বোকো হারাম। ‘বোকো হারাম’ কথার অর্থ হল ইংরেজি শিক্ষা পাপ। সেই বোকো হারাম গত ১৯শে ফেব্রুয়ারী, সোমবার নাইজেরিয়ার ইয়োবে প্রদেশের দাপচি শহরের একটি মেয়েদের স্কুলে হানা দিয়ে প্রায় একশোর বেশি ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। ঘটনার অনেক পর পুলিশ আসে। দেখা যায় পুরো স্কুল খাঁ খাঁ করছে। মেয়েদের জুতো পড়ে রয়েছে স্কুলের সামনে। সেই ঘটনার আটদিন পরও ছাত্রীদের উদ্ধার করতে পারেনি নাইজেরিয়ার সরকার। এমন পরিস্থিতিতে নাইজেরিয়ার রাষ্ট্রপতি মুহাম্মদ বুহারি এই ঘটনাকে ‘জাতীয় বিপর্যয়’ ঘোষণা করেছেন। বুহারি বলেছেন যে ‘অপহৃত মেয়েদের উদ্ধারে আরও সেনা পাঠানো হচ্ছে। আশেপাশের এলাকাতে খোঁজ করার জন্যে পাঠানো হচ্ছে বিমান।’ প্রসঙ্গত উল্লেখ করা যায় যে নাইজেরিয়াতে ছাত্রী অপহরণ এই প্রথম নয়। এর আগে ২০১৪ সালে মেয়েদের স্কুলে হানা দিয়ে চিবক সম্প্রদায়ের প্রায় ২০০-এর বেশি মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিল ইসলামিক জিহাদি বোকো হারাম। এখনো পর্যন্ত সেই মেয়েদের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। তবে তাদের কবল থেকে থেকে পালিয়ে আসা দুজন মেয়ে শুনিয়েছিল তাদের ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা। বোকো হারাম মেয়েদেরকে লাগাতার ধর্ষণ করতো। তাদেরকে যৌনদাসী বানিয়ে রাখা হতো। অনেক মেয়েকে আফ্রিকার অন্যান্য মুসলিম জিহাদি গোষ্ঠীর কাছে বিক্রি করে অর্থ রোজগার করেছে বোকো হারাম। এমনকি যারা অসুস্থ হয়ে যেত, তাদের মানববোমা বানিয়ে বিস্ফোরণ ঘটানো হতো।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s