আল কায়েদার টার্গেট এবার কলকাতা

নতুন বছর শুরুর আগেই জঙ্গি হামলার আতঙ্ক চেপে ধরল কলকাতাকে। আর তার পাশাপাশি নিশানায় চলে এল দিল্লি ও বেঙ্গালুরুও। এই আতঙ্কের নেপথ্যে রয়েছে মঙ্গলবার রাতে ওসামা বিন লাদেনের হাতে গড়া জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদার একটি ভিডিও ফুটেজ। যেখানে বলা হয়েছে, ‘কাশ্মীর জয়’ করতে হলে ভারতের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ শহরকে যুদ্ধক্ষেত্র বানাতে হবে। সেই যুদ্ধক্ষেত্র হিসেবেই বেছে নেওয়া হয়েছে দেশের তিন প্রান্তের তিন বড় শহরকে। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, ভারতের বিভিন্ন শহরের উল্লেখ আগে করলেও কলকাতার নাম আল কায়েদার মতো কোনও জঙ্গি সংগঠন সরাসরি করেনি। এই প্রথমবার যা উল্লেখ করা হয়েছে ভিডিও ফুটেজে। কিন্তু ‘কাশ্মীর জয়’-এর সঙ্গে এই শহরগুলির সম্পর্ক কী? ব্যাখ্যা করেছে উসামা মেহমুদ নামের আল কায়েদার এক শীর্ষ জঙ্গি। মুম্বই, বেঙ্গালুরু, দিল্লির মতো বড় বড় শহরে জঙ্গি হামলা এর আগে একাধিকবার হয়েছে। কিন্তু, ২০০২ সালে আমেরিকান সেন্টারে হামলা ছাড়া এখনও পর্যন্ত কোনও বড়সড় হামলা কলকাতায় হয়নি। একসময় কলকাতা বন্দর এলাকায় আল কায়েদার নামে কুপন বিক্রি হতে দেখা গিয়েছিল। টাকাও তোলা হয়েছিল সেই সময় প্রচুর। ওইটুকুই। তবে গোয়েন্দারা বলছেন, ভারতীয় উপমহাদেশে আল কায়েদার শাখা সংগঠন আনসারুল্লা বাংলা টিম। যারা মূলত বাংলাদেশে মুক্তমনাদের খতম করার অভিযোগে অভিযুক্ত। নাম পাল্টে তারা এখন আনসার আল ইসলাম। সম্প্রতি তাদের তিন সদস্য কলকাতা পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)-এর হাতে ধরা পড়েছে। আর ধরা পড়েছে খোদ কলকাতাতেই। আজ সেই মহানগরীর নামই এবার আল কায়েদার ভিডিও ফুটেজে! ফলে নড়েচড়ে বসেছেন গোয়েন্দা কর্তারা। রাজ্য প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের সঙ্গে সমন্বয় রেখেই নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এমনিতেই বড়দিন, বর্ষবরণ উপলক্ষে কড়া নিরাপত্তা রয়েছে রাজ্যের সর্বত্র। তার উপর এমন হুমকির পর গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলিতে নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে প্রচারিত ভিডিও ফুটেজে দেখা গিয়েছে উসামা মেহমুদ নামের ওই জঙ্গিকে। যে নিজেকে এই উপমহাদেশে আল কায়েদার সেকেন্ড ইন কমান্ড বলে দাবি করেছে। কাঁপা হাতে তোলা সেই ফুটেজে মেহমুদ হুমকি দিয়ে বলেছে, কাশ্মীরকে রক্ষা করতে এই মুহূর্তে উপত্যকায় মোতায়েন রয়েছে প্রায় ৬ লক্ষ ভারতীয় সেনা। অন্য শহরে আক্রমণ শানালে সেই সেনা সরাতে বাধ্য হবে নয়াদিল্লি। আর তখনই কাশ্মীরের উপর থেকে সেনাবাহিনীর রাশ আলগা হবে। ঠিক সেই সময় হামলা চালাতে হবে। মুক্তি পাবে উপত্যকা! মেহমুদের দাবি, রাজনৈতিকভাবে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হবে না। তার কথায়, যে সমাধানসূত্রে কোনও রক্ত-ঘাম ঝরে না, জেহাদ নেই, মৃত্যু নেই, ক্ষমতার কেন্দ্রে কোনও পরিবর্তন নেই – সেটা শুধুমাত্র শান্তিপূর্ণ এক অস্থায়ী চেষ্টা মাত্র।

মেহমুদ মার্কিন প্রসঙ্গ তুলে বলে, আমেরিকার দিকে তাকাও। ওদের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় যেভাবে আমরা ধাক্কা দিয়েছি, ঠিক একইভাবে ভারতীয় সেনা ও হিন্দু সরকার পরিচালিত শান্তির দুনিয়াকে যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত করতে হবে। তার কথায়, কলকাতা, বেঙ্গালুরু বা দিল্লি যদি আক্রান্ত হয়, তবেই হুঁশ ফিরবে এবং কাশ্মীরের উপর থেকে মুঠো আলগা হবে। কলকাতা সহ অন্য বড় শহরগুলি কেন আল কায়েদার টার্গেট হচ্ছে? মেহমুদের ভিডিওতেই সেই জবাব মিলছে। তার মন্তব্য, উপমহাদেশে জেহাদি আন্দোলন জোরদার করার প্রয়োজন এসেছে। পাশাপাশি, কাশ্মীরের মানুষের পাশে গোটা অঞ্চলের সকল মুসলিমের দাঁড়ানো উচিত। তবে পাকিস্তানের মদতেই যে কাশ্মীর উপত্যকায় জঙ্গিদের ‘বাড়বাড়ন্ত’ তাও কবুল করেছে উপমহাদেশে আল কায়েদার সেকেন্ড ইন কমান্ড।

সাক্ষাৎকার ভিত্তিক ওই ভিডিওতে কাশ্মীরে নিজেদের কৌশল নিয়েও কথা বলেছে মেহমুদ। তার দাবি, বহু মুজাহিদিন কাশ্মীরের জন্য পাকিস্তানে চলে গিয়েছে। এখনও যাচ্ছে। এ বিষয়ে পাক সেনার ভূমিকা নিয়েও সমালোচনা করেছে সে। পাক সেনার জন্যই মুজাহিদিনরা নিজেদের কাজকর্ম বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। এ প্রসঙ্গে সে ২০১২ সালের আগস্টে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গি শেখ আহসান আজিজের উপর ড্রোন হামলার উল্লেখও করেছে।

গোয়েন্দারা বলছেন, আগে কলকাতার নাম স্পষ্টভাবে না করলেও পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলির উপর হামলার হুমকি আল কায়েদার মুখে শোনা গিয়েছে। আল কায়েদা প্রথম যখন ভারত আক্রমণের হুমকি দিয়েছিল, তখন পশ্চিম ভারতের পাশাপাশি পূর্ব ভারতকেও তারা ‘টার্গেট’ করে। দু’দিক থেকে আক্রমণ শানালে ভারত বিপর্যস্ত হয়ে যাবে বলেও জানানো হয়েছিল। তবে এবারের মতো সেই সময় কলকাতার নাম সরাসরি উচ্চারণ করেনি তারা। এখন কিন্তু ভারতীয় উপমহাদেশের মাটিতে জেহাদি আন্দোলনের বীজ বুনতে কলকাতাও চলে এল জঙ্গি সংগঠনের নজরে!

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s